in হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মাদ ফজলুল করীম (রহঃ)

সর্বস্তরের মুসলমান ভাইদের প্রতি অসিয়ত

(১) রসূলে করীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেছেন, আমার পরে তোমরা দেখতে পাবে যে, ইসলামের মধ্যে অনেক মতবিরোধ দেখা দিবে, তখন তোমরা আমার সুন্নাত এবং আমার সাহাবায়ে কেরামের আর্দশের ওপরে খুব মজবুত হয়ে থাকবে। তাই আমি মুসলমান ভাই-বোনদেরকে সতর্ক করে যাচ্ছি যে, বর্তমান ফিৎনা-ফাসাদের যামানায় খুব সতর্কতার সাথে সঠিক দ্বীন এবং দ্বীনের জামাআত যাচাই-বাছাই করে গ্রহণ করবেন।

(২) প্রয়োজনীয় ইল্মে দ্বীন হাসিল করা প্রত্যেক মুসলমানের ওপরে ফরয। কাজেই আমলদার ওলামায়ে কেরাম ও হক্কানী পীর মাশায়েখের কিতাবের তা’লীম গ্রহণ করতঃ আলিমদের সুহবাতের মাধ্যমে জরুরী ইল্ম হাসিল করে নেবেন।
(৩) জাহেল ও বিদ্য়াতী পীর হতে দূরে থাকবেন। কেননা, এরা পীরের সূরাতে মানবরূপী শয়তান। আপনার ঈমান ও আমল সব কিছু বরবাদ করে দেবে।
(৪) পাঁচ ওয়াক্ত নামায জামায়াতের সাথে আদায় করবেন। ইচ্ছাকৃত ভাবে জামায়াত তরক করা মুনাফিকের আলামত। সুন্নাত ত্বরীকায় নিজের জীবন গড়ার চেষ্টা করবেন এবং নিয়মিত কিছু কুরআন তেলাওয়াত ও তাছবীহ-তাহলীল আদায় করবেন।
(৫) হক্কুল ইবাদের ব্যাপারে খুব সাবধান থাকবেন। স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে, আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী সকলের হক্বসমূহ কি, তা জেনে নিবেন এবং যথাযথ ভাবে আদায় করবেন।
(৬) নিজের সন্তানদিগকে ইল্মে দ্বীন শিক্ষা দিবেন এবং কখনও নজরদারী হতে গাফেল হবেন না। মনে রাখবেন এ সমস্ত বিষয়ে হাশরের দিনে আপনি জিজ্ঞাসিত হবেন।