in হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মাদ ফজলুল করীম (রহঃ)

বাংলাদেশ কুরআন শিক্ষা বোর্ডের দায়িত্বশীলদের প্রতি অসিয়ত

(১) ইসলামবিরোধী এন, জি, ও, এবং দ্বীনবিরোধী প্রতিষ্ঠানে মুসলিম ছেলে-মেয়েদেরকে নাস্তিক্যবাদী অপশিক্ষার ষড়যন্ত্র হতে বাঁচানোর লক্ষ্যে বাংলাদেশের ৬৮ হাজার গ্রামে ৬৮ হাজার ক্বিরাতুল কুরআন মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে মুসলিম ছেলে- মেয়েদেরকে কুরআন শিক্ষার কার্যকর ব্যবস্থা করতে হবে।
(২) যোগ্য আমলদার উস্তাদ তৈরি করার জন্য মুয়াল্লিম প্রশিক্ষণ অপরিহার্য। কাজেই সুপরিকল্পিত পদ্ধতি প্রণয়ন করতঃ আমলদার যোগ্য উস্তাদ তৈরি করার বাস্তব পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।
(৩) কুরআন শরীফ ছহীহ শুদ্ধ করে শিক্ষা করা সকল মুসলমানের ওপরে ফরয। কাজেই এলাকার সর্বস্তরের মুসলমানদের কুরআন শরীফ শিক্ষার জন্য বয়স্ক শিক্ষা চালু করতে হবে।
(৪) মনে রাখবেন কুরআনের খাঁটি খাদেমকে আল্লাহ্ তায়ালা দুনিয়া ও আখেরাতে কখনও অপমানিত করবেন না। কাজেই অর্থ সম্পদের মোহ পরিত্যাগ করে একমাত্র আল্লাহ্ তায়ালার সন্তুষ্টি লাভের আশায় জান মাল কুরবানী করতঃ কুরআনের খেদমতে সর্বদা আত্মনিয়োগ করবেন।
(৫) বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির মজলিসে খাছের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কুরআন শিক্ষা বোর্ড পরিচালিত হবে। কাজেই বোর্ডের কার্যক্রমকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা ও গতিশীল করার লক্ষ্যে নিজেদের মধ্যে আনুগত্যের গুণ অর্জন করতে হবে। সকল মতবিরোধ, অন্তর্দ্ব›দ্ব, কলহ পরিহার করে চলবেন। যে কোন জটিলতার ক্ষেত্রে মজলিসে খাছের ফায়ছালা মেনে চলবেন।
(৬) কুরআন শিক্ষা বোর্ডের নীতিমালা অনুযায়ী বোর্ডের সকল কর্মকান্ড পরিচালিত হবে এবং আমার মিশনসমূহ যথা বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটি, জামেয়া, কুরআন শিক্ষা বোর্ড ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন এর কাজে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন।