in হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মাদ ফজলুল করীম (রহঃ)

মওদূদীবাদের বিরুদ্ধে পীর সাহেব চরমোনাই (রহঃ) এর যুগান্তকারী চ্যালেঞ্জ ও কিছু প্রশ্ন

ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মুহতারম আমীর আলহাজ্জ হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মাদ ফজলুল করীম, পীর সাহেব চরমোনাই (রহঃ) ঢাকার ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানসহ বিভিন্ন জনসভায় মওদূদী জামায়াতের বিরুদ্ধে এক ঐতিহাসিক চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করে বলেন- জামায়াতে ইসলামী সঠিক ইসলামী দল নয়। এটা যদি কুরআন ও হাদীছের আলোকে প্রমাণ করতে না পারি তাহলে ঐ বৈঠকে তওবা করে জামায়াতে ইসলামীতে যোগ দেব।

উক্ত চ্যালেঞ্জের জওয়াবে জামায়াতে ইসলামীর তৎকালীন আমীর গোলাম আযম বলেছিলেন যে, মোমবাতি যদি সূর্যের সাথে চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করে তাতে সূর্যের কি আসে যায়, (নাউযুবিল্লাহ)।
কিন্তু বড়ই হাস্যকর বিষয় হচ্ছে তাদের এ বিবৃতি তাদের দ্বারাই মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। গোলাম আযম উক্ত বিবৃতি দ্বারা বোঝাতে চান, পীর সাহেব চরমোনাই মোমবাতি আর তারা সূর্যতুল্য। এটাই যদি হয় তবে তার কথা মিথ্যা। কারণ, কোন ছাত্র যদি প্রতিষ্ঠানের প্রিন্সিপ্যালের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করে আর প্রিন্সিপ্যাল ঐ ব্যাপারে কথা বলেন তাহলে বোঝা যায় প্রিন্সিপ্যাল ঐ ছাত্রকে সাধারণ ভাবেনি বরং তাকে শক্তিশালী হিসাবেই দেখেছে। পীর সাহেব চরমোনাইর চ্যালেঞ্জের মোকাবেলায় গোলাম আযম সাহেব যে কথা বলেছিলেন- তা তাঁকে গুরুত্ব দেয়ার কারণেই বলেছিলেন। তদ্রƒপ নিজেদেরকে সূর্যতুল্য এবং পীর সাহেব চরমোনাইকে মোমবাতি তুল্য জেনে যদি গুরুত্ব না দিতেন তাহলে কিছুতেই এ বিষয়ে কথা বলতেন না। শুধু তাই নয়, তাদের কর্মীদের নিকটে সর্বাধিক জনপ্রিয় নেতা জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর দেলওয়ার হোসাইন সাঈদী এক জনসমাবেশে ঢাকার ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে পীর সাহেব চরমোনাই (রহঃ) এর সমালোচনা করেছেন। এতেই প্রমানিত হয় যে, জামায়াতে ইসলামীর নেতা কর্মীরা পীর সাহেব চরমোনাই (রহঃ) কে কোন ছোটখাট ব্যক্তি মনে করেন না, বরং বিশাল ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ব্যক্তি হিসাবেই মনে করে থাকেন। এখানে কয়েকটি বিষয় দৃষ্টি আকর্ষণী তা হলঃ-
 পীর সাহেব চরমোনাইর বিরুদ্ধে যিনি জনসমাবেশে বক্তব্য দিয়েছেন তিনি তাদের সবচেয়ে বড় বক্তা।
 যে ময়দানে বক্তব্য দিয়েছেন তা রাজনৈতিক দিক থেকে বাংলাদেশের সবচেয়ে ঐতিহাসিক ময়দান, তা হল পল্টন ময়দান।
 যে সমাবেশে বক্তব্য দিয়েছেন তা হল ঐ বছরে তাদের সবচেয়ে বড় সমাবেশ। শুধু ঐ বছরের নয় বরং তাদের রাজনৈতিক জীবনের সবচেয়ে বড় মহাসমাবেশ।
এখন আমার প্রশ্ন, তাদের সবচেয়ে বড় বক্তা, সবচেয়ে সেরা ময়দানে সবচেয়ে বড় মহাসমাবেশে যে ব্যক্তির বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছেন তিনি যে মোমবাতি নন বরং বিশাল ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন তা উপরোক্ত ৩টি দৃষ্টি আকর্ষণীর মাধ্যমে তারাই প্রমাণ করল।
মূল ব্যাপার হচ্ছে, যদি কেউ কারো বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জ দেয় আর প্রতিপক্ষের সে চ্যালেঞ্জ গ্রহণে দুর্বলতা থাকে তবে সে এ ভাবেই ডাহা মিথ্যা বলে সেটা এড়িয়ে চলে। মূলতঃ বাতিলেরা তাদের নিজেদের বক্তব্যের মাধ্যমে নিজেদেরকেই আস্তাকুঁড়ে নিক্ষেপ করে।